Search Here

Most Recent

১৯ জুলাই, ২০২১

Ancient Indian History | বৈদিক সভ্যতা। MCQ

 বৈদিক সভ্যতা | VEDIC CIVILIZATION 

Ancient Indian History   gkghor.in
বৈদিক সভ্যতা। Ancient Indian History
  


বন্ধুরা, 

এই পর্বে আমরা বৈদিক সভ্যতা বা Vedic Civilization এর উপর থেকে বিশ্লেষণ করবো এবং সঙ্গে আপনাদের প্রস্তুতির জন্য দেওয়া হল কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর। 


বৈদিক সভ্যতা :

সিন্ধু সভ্যতার পতনের পর আর্যদের দ্বারা ভারতে বৈদিক সভ্যতার সূচনা হয়। বস্তুত, আর্য এক ধরনের ভাষা শব্দ, মুলত এটি একটি ভারোপীয় ভাষার সমূহ। আর্য কথার অর্থ হল বৈদিক প্রতিভা  সম্পন্ন শ্রেষ্ঠ  পুরুষ | সমাজের উচ্চ বর্গ, সমাজের প্রভু।  কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্রে বলা হয়েছে যে আর্যদের দাস বানানো সম্ভব নয় | ঋকবেদে আর্য শব্দটি 33 অথবা 36 বার পাওয়া যায় |


 বৈদিক সাহিত্য:  বেদ ব্রাহ্মণ আরণ্যক এবং উপনিষদ ক্রমশ বৈদিক সাহিত্যের অন্তর্গত হয়েছে | এরপর সূত্র সাহিত্য আসে যা বৈদিক সাহিত্যের ভাগ নয়। কিন্তু বৈদিক সাহিত্য কে বোঝার জন্য এর গুরুত্ব অপরিসীম। ডঃ আনন্দ কুমার স্বামী তার বইয়ে আ নিউ অ্যাপ্রচ টু দা বেদাস বেদের বাণীকে Mystic বাণী বলে। 


 ঋকবেদ:  ঋকবেদের প্রাচীনতম পান্ডুলিপি সারদা লিপিতে পাওয়া যায়। ইরানি গ্রন্থ আবেস্তা সঙ্গে ঋকবেদের সমনতা আছে।  ঋকবেদে এবং আবেস্তা ভারতীয় ভাষার দুটি প্রাচীনতম গ্রন্থ। ঋকবেদের  শুরু অগ্নির উপাসনা দিয়ে। এদের ভাষা সংস্কৃত এবং লিপি ব্রাম্নী | ঋকবেদের প্রথম এবং দশম মন্ডল প্রাচীনতম মন্ডল | সর্বাধিক পরিমাণে সুক্ত দশম মণ্ডলে এবং প্রথম মনে আছে | সবচেয়ে কম মন্ত্র দ্বিতীয় মন্ডলে আছে |


 সামবেদ : সাম কথার অর্থ হল গান | সামবেদের প্রথম দ্রোষ্টা আশ্চর্য জেমিনী | সামবেদ এ মোট মন্ত্রসংখ্যা 1869 কিন্তু একই মন্ত্র বারবার আশায় কিছু মন্ত্র বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে | বর্তমানে সামবেদের মন্ত্রসংখ্যা 1549, এর মধ্যে থেকে 1474 মন্ত্র Rigved থেকে নেওয়া হয়েছে|এই কারণে সামবেদ ঋকবেদের থেকে অভিন্ন বলে মনে করা হয় | সামবেদ কে ভারতীয় সংগীতের মূল গ্রন্থ বলে মনে করা হয় | সামবেদ এ দুটি উপনিষদ - ছান্দোগ্য উপনিষদ এবং কেন উপনিষদ |


 যজুর্বেদ: যজুর্বেদ এর উদ্ভব বায়ু থেকে হয়েছে বলে মনে করা হয় | এই বেদকে গতি এবং কর্মের বেদ বলা হয় | যজুর্বেদ এ নিয়ম এবং বিধি-বিধান তথা যজ্ঞ অনুষ্ঠান এর উল্লেখ আছে | যজুর্বেদ দুটো ভাগ শুক্ল যজুর্বেদ এবং কৃষ্ণ যজুর্বেদ |


 অথর্ববেদ: অথর্ব মুনি হলেন অথর্ববেদের প্রথম দ্রষ্টা যার নাম অনুসারে অথর্ববেদ নাম হয়েছে | অথর্ববেদ আর্য এবং অনার্য দুই পর্যায়ের সংযুক্ত রচনা | অথর্ববেদ হল সর্বাধিক লোক প্রিয় | মোঘল  কালে অথর্ববেদের অনুবাদ করেন আব্দুল কাদির বাদায়ুনি | অথর্ববেদ হলো একমাত্র বেদ যার কোন আরণ্যক নেই। 


👉 সিন্ধু সভ্যতা প্রশ্নোত্তর | হরপ্পা সভ্যতা - Click Here


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন